না রাখিলা জলে আমায় না রাখলা ডাঙ্গায়

না রাখিলা জলে আমায়

না রাখলা ডাঙ্গায় তুমি না রাখলা ডাঙ্গায়

একটা যন্ত্রনার মাকড়শা বুকে দুঃখের জাল বুনায়।

একটা যন্ত্রনার মাকড়শা বুকে কষ্টের জাল বুনায়।

 

দিবানিশী প্রতি ক্ষনে আছ তুমি আমার মনে

হৃদয়তে খোদাই করে প্রেমের লিপিকায়

একটা যন্ত্রনার মাকড়শা বুকে দুঃখের জাল বুনায়।

একটা যন্ত্রনার মাকড়শা বুকে কষ্টের জাল বুনায়।

 

তুমিও কি তেমনি করে ভাব মোরে ক্ষনে ক্ষনে

নাকি আমি শুধুই একা আছি দুটানায়

একটা যন্ত্রনার মাকড়শা বুকে দুঃখের জাল বুনায়।

একটা যন্ত্রনার মাকড়শা বুকে কষ্টের জাল বুনায়।

 

না রাখিলা জলে আমায়

না রাখলা ডাঙ্গায় তুমি না রাখলা ডাঙ্গায়

একটা যন্ত্রনার মাকড়শা বুকে দুঃখের জাল বুনায়।

একটা যন্ত্রনার মাকড়শা বুকে কষ্টের জাল বুনায়।

কথাঃ সংগ্রহ

Advertisements

তুমি পাগল বলো আর নিঠুর বলো

শিল্পী-কুমার বিশ্বজীৎ

তুমি পাগল বলো আর নিঠুর বলো সবই তোমার আমি

তুমি নিঃশ্ব হবে কভু থেমে গেলে আমার এমন পাগলামি

আমি নাকি ছন্নছাড়া বড় অভিমানী

তোমার অভিযোগে হলাম যে আসামী

কিছু জ্বালা দেবার ভালবাসা দেবার একজনি ত আমি

তুমি নিঃশ্ব কভু থেমে গেলে আমার এমন পাগলামি

তোমারই আজ্ঞাত পেলে এ হৃদয় বেঁকে চলে

তোমার অধিকারে এজীবন ভাঙ্গে গড়ে

ভালবাসা আমার এত গভীর বলেই তাইত এমন আমি

তুমি নিঃশ্ব কভু থেমে গেলে আমার এমন পাগলামি

বসুন্ধরার বুকে

শিল্পীঃ পবন দাস বাউল

paban das baul

paban das baul

এ্যালবামঃ আসল চিনি

বসুন্ধরার বুকে, বরষারই ধারা

ধারা ভরা হাহাকার

তেরশ পঁচাশি সালে

ধামদরের বান ভেঙ্গে পরে

বালক ছেলে কুলে করে

ইশকুলে পালাই

চলতি ঘাটাই দেখলাম বিরাট এক সাঁকো

লোহার খুঁটি খাম্বা

তলে আছে ঠাকুর

কত গরু গাড়ী, কত বুড়ো বুড়ি

নদ নদী গেলো ভেসে

বান উঠলো ভাই ঘরে ঘরে

দেওয়াল চাপা মানুষ মরে

বালক ছলে কুলে করে, ইশকুলে পালাই

বর্ধমান, পাকুরা, মেদিনীপুর, মনপুর

দামকা পাতে নাই আর মুর্শিদাবাদবেগুম

ষোল ক্রোশ জোড় লোহার খুটি মেরে

জল কে রেখেছে ঘেরে

 

[ কোন ভুল থাকলে মন্তব্যের মাধ্যমে জানাবেন, সংশোধন করে নিব ]

পৃথিবীটা নাকি

পৃথিবীটা নাকি ছোট হতে হতে
স্যাটেলাইট আর ক্যাবলের হাতে
ড্রয়িং রুমে রাখা বোকা বাক্সতে বন্দী
ঘরে বসে সারা দুনিয়ার সাথে যোগাযোগ
আজ হাতের মুঠোতে গুজে গেছে দেশ কাল সীমানার গণ্ডি।
ভেবে দেখেছ কি তারাও যত আলোক বর্ষ দূরে
তারও দূরে তুমি আর আমি যাই ক্রমে সরে সরে।

সারি সারি মুখ আসে আর যায় নেশা-তুর চোখ টিভি পর্দায়
পোকামাকড়ের আগুনের সাথে সন্ধি।
পাশা পাশি বসে একসাথে দেখা একসাথে নয় আসলে যে একা
তোমার আমার ভাড়াটের নয়া ফন্দি।

স্বপ্ন বেচার চোরা কারবার জায়গাত নেই তোমার আমার
চোখ ধাঁধানোর এই খেলা শুধু ভঙ্গির।

-মাহিনের ঘোড়া গুলি

মাঝে মাঝে তব দেখা পাই

মাঝে মাঝে তব দেখা পাই, চিরদিন কেন পাই না?

কেন মেঘ আসে হৃদয়-আকাশে, তোমারে দেখিতে দেয় না?।

ক্ষণিক আলোকে আঁখির পলকে তোমায় যবে পাই দেখিতে

হারাই-হারাই সদা হয় ভয়, হারাইয়া ফেলি চকিতে ॥

কী করিলে বলো পাইব তোমারে, রাখিব আঁখিতে আঁখিতে।

এত প্রেম আমি কোথা পাব নাথ, তোমারে হৃদয়ে রাখিতে?

আর কারো পানে চাহিব না আর, করিব হে আমি প্রাণপণ–

তুমি যদি বল এখনি করিব বিষয়বাসনা বিসর্জন ॥

রাগ: কাফি
তাল: দাদরা
রচনাকাল (বঙ্গাব্দ): ৯ মাঘ, ১২৯১
রচনাকাল (খৃষ্টাব্দ): ১৮৮৫
স্বরলিপিকার: কাঙ্গালীচরণ সেন

নীলাঞ্জনা

লাল ফিতে সাদা মোজা সু স্কুলের ইউনিফর্ম
ন’টার সাইরেন সংকেত সিলেবাসে মনোযোগ কম
পড়া ফেলে এক ছুট ছুট্টে রাস্তার মোড়ে, দেখে
সাইরেন মিস করা দোকানীরা দেয় ঘড়িতে দম
এরপর একরাশ কালো কালো ধোঁয়া
স্কুল বাসে করে তার দ্রুত চলে যাওয়া
এরপর বিষন্ন দিন বাজেনা মনোবীণ
অবসাদে ঘিরে থাকা সে দীর্ঘ দিন
হাজার কবিতা বেকার সবই তা
তার কথা কেউ বলে না
সে প্রথম প্রেম আমার নীলাঞ্জনা
সন্ধ্যা ঘনাতো যখন পাড়ায় পাড়ায়
রক থাকতো ভরে কিছু বখাটে ছোড়ায়
হিন্দি গানের কলি সদ্য শেখা গালাগালি
একঘেয়ে হয়ে যেত সময় সময়
তখন উদাস মন ভোলে মনরঞ্জন
দাম দিয়ে যন্ত্রনা কিনতে চায়
তখন নীলাঞ্জনা প্রেমিকের কল্পনা
ওমনের গভীরতা জানতে চায়
যখন খোলা চুলে হয়তো মনের ভুলে
তাকাতো সে অবহেলে দু’চোখ মেলে
হাজার কবিতা বেকার সবই তা
তার কথা কেউ বলে না
সে প্রথম প্রেম আমার নীলাঞ্জনা
অংকের খাতা ভরা থাকতো আঁকায়
তার ছবি তার নাম পাতায় পাতায়
হাজার অনুষ্ঠান প্রভাত ফেরীর গান
মন দিন গুনে এই দিনে আশায়
রাত জেগে নাটকের মহরায় চঞ্চল
মন শুধু সে ক্ষনের প্রতিক্ষায়
রাত্রির আঙ্গিনায় যদি খোলা জানালায়
একবার একবার যদি সে দাড়ায়
বোঝেনি অবুঝ মন নীলাঞ্জনা তখন
নিজেতে ছিলো মগণ এ প্রানপণ
হাজার কবিতা বেকার সবই তা
তার কথা কেউ বলে না
সে প্রথম প্রেম আমার নীলাঞ্জনা

http://arunavabhatt.blogspot.com/2012/10/blog-post_7784.html

চল রাস্তায় সাজি ট্রাম লাইন

চল রাস্তায় সাজি ট্রাম লাইন আর কবিতায় শুয়ে couplet
আহা উত্তাপ কত সুন্দর তুই thermometer -এ মাপলে

হিয়া টুপটাপ জিয়া নস্টাল ( nostal -gia ) , মিঠে কুয়াশায় ভেজা আস্তিন
আমি ভুলে যাই কাকে চাইতাম আর তুই কাকে ভালোবাসতি

চল রাস্তায় সাজি ট্রাম লাইন….

প্রিয় বন্ধুর পাড়া নিরঝুম, চেনা চাঁদ চলে যায় রিক্সায়
মুখে যা খুশি বলুক রাত্তির , শুধু চোখ থেকে চোখ দিক সায়

পায়ে ঘুম যায় একা ফুটপাথ ওড়ে জোছনায় মোরা প্ল্যাস্টিক ,
আমি ভুলে যাই কাকে চাইতাম আর তুই কাকে ভালোবাসতি

চল রাস্তায় সাজি ট্রাম লাইন…..

পোষা বালিশের নিচে পথঘাট, যারা সস্তায় ঘুম কিনতও
তারা কবে ছেড়ে গেছে বন্দর, আমি পালটে নিয়েছি রিংটোন

তবু বারবার তকে ডাক দিই একি উপহার নাকি শাস্তি
তবু বারবার তকে ডাক দিই একি উপহার নাকি শাস্তি
আমি ভুলে যাই কাকে চাইতাম আর তুই কাকে ভালোবাসতি……

http://arunavabhatt.blogspot.com/2012/10/blog-post_4004.html

বেঁচে থাকার গান

গানের কথা : অনুপম রায়
গায়ক : রূপম ইসলাম / সপ্তর্ষি মুখার্জী

যদি কেড়ে নিতে বলে
কবিতা ঠাসা খাতা
জেনো কেড়ে নিতে দেবোনা

যদি ছেড়ে যেতে বলে শহুরে কথকতা
জেনো আমি ছাড়তে দেবোনা
আর আমি আমি জানি জানি চোরাবালি কতখানি
গিলেছে আমাদের রোজ

আর আমি আমি জানি
প্রতি রাতে হয়রানি ,
হারানো শব্দের খোঁজ
আর এভাবেই নরম বালিশে, তোমার ওই চোখের নালিশে
বেঁচে থাক রাত পরীদের স্নান
ঠোঁটে নিয়ে বেঁচে থাকার গান

আর এভাবেই মুখের চাদরে, পরিচিত হাতের আদরে
বেঁচে থাক রাতে পরীদের স্নান
ঠোঁটে নিয়ে বাঁচিয়ে রাখার গান

যদি নিমেষে হারালে জীবনে পরিপাটি
তবু হেরে যেতে দেবোনা
যদি বেচে দিতে বলে শিকড়ে বাধা মাটি
জেনো আমি বেচতে দেবোনা

আর
আমি আমি জানি জানি চোরাবালি কতখানি গিলেছে আমাদের
রোজ
আর আমি আমি জানি
প্রতি রাতে হয়রানি ,
হারানো শব্দের খোঁজ
আর এভাবেই নরম বালিশে, তোমার ওই চোখের নালিশে
বেঁচে থাক রাত পরীদের স্নান
ঠোঁটে নিয়ে বেঁচে থাকার গান

আর এভাবেই মুখের চাদরে, পরিচিত হাতের আদরে
বেঁচে থাক রাতে পরীদের স্নান
ঠোঁটে নিয়ে বাঁচিয়ে রাখার গান…..

সংগ্রহঃhttps://www.facebook.com/amar.gaan?directed_target_id=0&filter=1

ভালবাসি তোমায় বলব না-তপু

রাত্রে বাস জার্নির জন্য মোবাইলে কিছু গান লোড করার সময় প্রথম বার এই গানটা শোনলাম, বেশ আপন মনে হল। অনেক জায়গায় মিলে যায় আমার সাথে। তাই কোন রকম ভাবে কথা গুলো লিখে নিলাম।

[গানের কথা গুলো শোনে লেখা, তাই কাঠামোগত শুদ্ধতা আশা করবেন না]

ভালবাসি তোমায় বলব না
মনে আছ তুমি বলব না
সত্যি যদি হয় ভালবাসা
এসব কিছুই বলা লাগে না
দুঃখ পেলে তুমি কাঁদ, আনন্দে হাস
যদি কাও কে ভালবাস, বল না কিছু হায়
ভালবাসি তোমায় বলব না

চেয়ে ছিলে সাদা ফুল দিয়ে ছিলাম তা
নিয়ে চলে গেলে কিছুই বললে না
ভেবনা পেয়েছি দুঃখ মনেতে
ভেবনা পেয়েছি আঘাত
মনে আছে আজ তুমি বলেছিলে ভালবাসাতে দিয়ো না ধন্যবাদ
ভালবাসি তোমায় বলব না
মনে আছ তুমি বলব না

কেঁদে ছিলে তুমি দিয়েছি সান্ত্বনা
হাত ধরার আমার এটাই ছলনা
আজকাল একদমই কাঁদ না
হয় না ধরা হাত
স্বপ্ন দেখি কাঁদছ তুমি আছ, না দেখবনা তা
ভালবাসি তোমায় বলব না

ভালবাসি তোমায় বলব না
মনে আছ তুমি বলব না
সত্যি যদি হয় ভালবাসা
এসব কিছুই বলা লাগে না
দুঃখ পেলে তুমি কাঁদ, আনন্দে হাস
যদি কাও কে ভালবাস বল না কিছু হায়

একলা ঘর – ফসিল

এই একলা ঘর আমার দেশ
আমার একলা থাকার অভ্যেস
আমি কিছুতেই ভাববো না তোমার কথা
বোবা টেলিফোনের পাশে বসে।
তবু গভীর রাতের অগভীর সিনেমায়
যদি প্রেম চাই নাটকে বিদায়
আমি আচ্ছন্ন হয়ে পড়েছি আবার
দেখি চোখ ভিজে যাই কান্নাই৷

এই একলা ঘর ….. পাশে বসে।

না না কাদছি না
তোমায় ভাবছি না
মনে পড়ছে না তোমাকে
তবু যাচ্ছি কি?
ফিরে যাচ্ছি কি?
সেই ফেলে আসা অতীতে
সেই অতীতে।

বন্ধুদের ভিড়েও একলা একলা আমি
খুজে ফিরি লক্ষ্য আমার
পাল্টাচ্ছে না এই অবস্থাটা
যদিও পাল্টে যাওয়াই দরকার
তোমার বাড়ির পথে চলেছি আবার
দেয় বৃষ্টিটা সঙ্গ আমায়
জানালার কাঁচে তুমি দেখতে পাবে কি
নাকি ঝাপসা তা ঘোর বর্ষায়

বন্ধুদের ভিড়েও একলা ……. ঝাপসা তা ঘোর বর্ষায়

না না যাচ্ছি না
কোথাও যাচ্ছি না
খুজে পাচ্ছি না
সেই পথটা কে
তবু যাচ্ছি কি?
ফিরে যাচ্ছি কি ?
সেই ভুলে যাওয়া তোমাকে
সেই তোমাকেই

না না কাদছি না তোমায় …….সেই অতীতে
না না যাচ্ছি না কোথাও …..সেই তোমাকেই